বিনোদন

বিধবা হয়েও এত ফুর্তি! নীতু কপূর কেঁদে বুক ভাসান না কেন-কটাক্ষের মোক্ষম জবাব দিলেন নীতু

যুগ এতো এগিয়ে গেছে তবুও মানুষের মানসিকতার বদল হয়নি এতটুকু। আজ‌ও বিধবাদের নিয়ে সমাজের বেশিরভাগ মানুষের মধ্যেই নানান রকম সংকীর্ণতা কাজ করে। স্বামী মারা গেছে মানেই তাকে একটি ঘেরাটোপের মধ্যে থাকতে হবে এমনটাই যেন সমাজের নির্দেশ। বিন্দুমাত্র এদিক থেকে ওদিক হলেই সমাজের রক্তচক্ষু আর শাসানি রয়েছে! ঠিক এমনটাই ঘটলো নীতু কপূরের ক্ষেত্রে।

আরও পড়ুন: ‘পার্টিতে গিয়ে খেতে পারি না, মা বাড়িতে খাবার নিয়ে অপেক্ষা করেন, আমার মাকে ছাড়া একদিনও চলবে না, আর মায়েরও আমায় ছাড়া চলবে না।’- মা ছেলের এক অটুট বন্ধন সামনে এলো শিবপ্রসাদের কথায়

বলিউডের অভিনেতা ঋষি কপূরের মৃত্যু হয়েছে দুই বছর হলো। তবে আজও সেই মানুষটির উজ্জ্বল উপস্থিতি রয়েছে তার পরিবারে। ঋষি কপূরের স্ত্রী নীতু কপূর আজ‌ও প্রতিমুহূর্তে নিজের স্বামীর অভাব অনুভব করেন, কখনো আবার কল্পনায় ঋষি কপূরের সঙ্গে কথাও বলেন। এই ভাবেই স্বামীকে নিজের মধ্যে বাঁচিয়ে রেখেছেন তিনি, নিজেদের ঘর বারান্দা থেকে শুরু করে খাবার জায়গা অবধি সর্বত্রই ছড়িয়ে রেখেছেন প্রয়াত স্বামীর ছবি।

সদ্য বিয়ে হয়েছে লাভ বার্ডস রণবীর কপূর ও আলিয়া ভট্টের। বলিউডের এই তারকা জুটির বিয়েতে যেখানে তারকাদের মেলা বসেছিল সেখানে প্রতিমুহূর্তে ঋষি কপূরের অভাব বোঝা যাচ্ছিল। ছেলের বিয়েটাও তিনি দেখে যেতে পারলেন না বলে আক্ষেপ ছিল ঋষি ঘরণীর।

আরও পড়ুন: বস্তিতে থাকতেন আদানি! মাত্র ৩০০ টাকা বেতনে হিন্দ্র ব্রাদার্সে কাজ শুরু করেছিলেন! আজ বিশ্বের পঞ্চম এবং ভারতের প্রথম ধনী ব্যক্তি গৌতম আদানি

স্বামী চলে যাওয়ার যন্ত্রণা একাকিত্বের যন্ত্রণা সবটাই তার ব্যক্তিগত কিন্তু সেটা ব্যক্তিগত বলে আড়ালে ঢাকা চাপা দিয়ে রাখলে চলবে কেন? তিনি দুঃখী বিধবার মত বুক চাপড়ে খাচ্ছেন না? শোকের বহিঃপ্রকাশ করছেন না? আবার পুনরায় কাজের জগতে ফিরছেন- এইসব নিয়ে বিস্তর অভিযোগ অনুরাগীদের। স্বামীহারা নীতুর হাসিমুখ দেখে তাকে রীতিমত কটাক্ষ করতে শুরু করেছেন অনুরাগীরা। তাদের প্রশ্ন, বিধবা মানুষের আবার এত ফুর্তি কিসের!-সত্যি আজ একুশ শতকে এসে ও মানুষের মধ্যে এত সংকীর্ণ মনস্কতা দেখে অবাক হচ্ছেন বর্ষীয়ান অভিনেত্রী, কষ্ট‌ও পাচ্ছেন তিনি। কিন্তু কষ্ট পেলেও প্রতিবাদ করতে তিনি ভোলেন নি।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by neetu Kapoor. Fightingfyt (@neetu54)

সমাজের কটাক্ষ, ব্যঙ্গ, বক্রোক্তি ক্রমশ বাড়তে থাকায় নীতু প্রশ্ন করেছেন, “ঋষি আমার কাছে কী ছিলেন সেটা কি বাইরের লোককে বলে বোঝাতে হবে?” এর সাথে তিনি আরো বলেছেন যে, একাকীত্বের যন্ত্রণা ভুলে থাকার জন্য‌ই বহুদিন পর আবার নিজের কাজের রুটিনে ফিরছেন তিনি। এই নিয়ে কটাক্ষ তিনি বরদাস্ত না।

ক্রমাগত কটাক্ষ শুনতে শুনতে বিরক্ত নীতু এও বলেছেন যে, প্রচুর লোক নেট মাধ্যমে এসে তাকে তার আচরণ নিয়ে কথা শুনিয়েছেন। বলেছেন যে, স্বামী নেই বলে তিনি নাকি উল্লাস করছেন, কিন্তু এই ধরনের মন্তব্য তিনি আর বরদাস্ত করবেন না বলে সর্বসমক্ষে জানিয়েছেন তিনি। তার ১ লক্ষ ৮০ হাজার অনুগামীর মধ্যে যারা কেবল তাকে অপমান করবার সুযোগ খোঁজেন তাদের এবার ব্লক করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অভিনেত্রী।

Related Articles

Back to top button