গসিপ

রূপসা চক্রবর্তী, ছোট পর্দায় বিখ্যাত মুখ! কিন্তু আজকের এত জনপ্রিয় অভিনেত্রী অভিনয় জগতে আসলেন কিভাবে তা জানেন কি? চলুন যে দেখে নেওয়া যাক রূপসার গল্প

ছোট পর্দার পার্শ্ব চরিত্র গুলির মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় মুখ রূপসা চক্রবর্তী। সিরিয়াল প্রেমীদের মনে বেশ খানিকটা জায়গা করে নিয়েছিলেন খুব কম সময়েই। কিন্তু নায়িকা হওয়ার মতো রূপ এবং অভিনয়ের গুণ থাকা সত্ত্বেও পার্শ্ব চরিত্রে দেখা যায় অভিনেত্রীকে। যদিও পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করেও বেশ জনপ্রিয়তার অর্জন করেছেন রূপসা। এসব তো পরের কথা, কিন্তু রূপসা চক্রবর্তী একটি সাধারণ মেয়ে থেকে কিভাবে অভিনেত্রীর রূপসা চক্রবর্তী হয়ে উঠলেন সে গল্প জানেন কি? চলুন জেনে নেওয়া যাক।

এই অভিনেত্রী রূপসা চক্রবর্তী স্বামীর নাম স্নেহাশিস চক্রবর্তী। যিনি বর্তমানের টেলিভিশনে ছোট পর্দার একজন বিখ্যাত পরিচালক। বেশ কয়েক বছর ধরে তিনি বহু সেরা ধারাবাহিক উপহার দিয়েছেন বাংলার দর্শকদের। পরিচালনা করেছেন বহু সেরা ধারাবাহিকের। যেমন – ‘ভালোবাসা ডট কম’, ‘টাপুর টুপুর’, ‘তুমি রবে নীরবে’, ‘রাখী বন্ধন’, ‘খোকাবাবু’, ‘গঙ্গারাম’, ‘জীবন সাথী’ প্রভৃতি। এইবার এই ক্ষেত্রে প্রশ্ন ওঠার স্বাভাবিক যে তবে কি স্বামীর হাত ধরেই অভিনয় জগতে পদার্পণ?

ঠিক ধরেছেন একদমই তাই! পরিচালক স্বামী দেবাশীষের হাত ধরেই অভিনয় জগতে এসেছেন অভিনেত্রী রূপসা চক্রবর্তী। তবে এমন নয় যে স্বামী পরিচালক বলেই তাকে অভিনয় করার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। যথেষ্ট অভিনয় দক্ষতা থাকার কারণেই এখনো সে অভিনয় জগতে জনপ্রিয়তা টিকিয়ে রাখতে পেরেছেন।

আর পাঁচটা সাধারন মেয়ের মতই পড়াশোনা ও গান নিয়েই ছিলেন রূপসা। বেশ কয়েকটি ধারাবাহিকে প্লেব্যাক করেন বর্তমান অভিনেত্রী। তারপর বৈবাহিক জীবনে প্রবেশ করেন এবং তার পাশাপাশি চালিয়ে যান পড়াশোনা। এর পরেই তার কোল আলো করে আসে এক পুত্র সন্তান। সেই সন্তানের যখন বয়স পাঁচ বছর তখন তিনি প্রথম অভিনয় জগতে কাজ শুরু করেন।

পরিচালক স্বামী স্নেহাশীষের একটি ধারাবাহিকে কাজের জন্য একটি মেয়ের দরকার ছিল। পছন্দমত অভিনেত্রী না পাওয়ায় স্ত্রীকে এই কাজের অফার দেন। তখন রুপসা মাস্টার্স শেষ করে পিএইচডি করছেন। রূপসার কখনোই অভিনয়ে কোন আগ্রহ ছিল না। তার স্বামী তাকে বলেন, ‘অভিনয় টা একবার করেই দ্যাখো খারাপ লাগবে না, আর যদি ভালো না হয় তাহলে আমিই অভিনয় থেকে তোমাকে বাদ দিয়ে দেব’।

এই কথায় রূপসার মান-সম্মানে আঘাত করে। অভিনেত্রী স্বামীকে বলেন, ‘আমার জেঠু, আমার বাবা অভিনয় করতেন, অভিনয় টা আমার রক্তে আছে, তাই তুমি আমাকে কি করে বাদ দাও দেখে নেব’। আর তারপরেই ‘জড়োয়ার ঝুমকো’, ‘দীপ জ্বেলে যাই’, ‘খোকাবাবু’, ‘কলের বউ’, ‘রাখিবন্ধন’, ‘জীবনসাথী’, ‘বেনে বউ’, ‘গঙ্গারাম’ প্রভৃতি একের পর এক জনপ্রিয় ধারাবাহিকে কাজ করে গেছেন অভিনেত্রী। এভাবেই অভিনয় জগতে আসা রূপসার।

Related Articles

Back to top button